https://www.somagom.com/wp-content/uploads/2019/09/impor.jpg

চীন বা চায়না থেকে  কিভাবে আমদানি করা যায় ? চীনের সাথে ব্যবসায় করার উপায় কি? পন্য বা মালামাল আমদানি করার সহজ উপায় কি? আমি চীন হতে পন্য আমদানি করে ব্যবসায় শুরু করতে চাই কিন্তু কিভাবে? আলিবাবা হয়ে পন্য কেনার উপায় কি?

প্রিয় পাঠক, আপনি যদি চীন হতে প্রোডাক্ট এনে বাংলাদেশে ব্যবসায় করার কথা চিন্তা করে থাকেন বা করবেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন তাহলে এই প্রশ্ন গুলো আপনার মাথায় কাজ করবে।

আমাদের মধ্যে অনেকেই চীন হতে বা পন্য আমদানি করে বাংলাদেশে বসে ব্যবসায় করার কথা ভাবছেন কিন্তু অনেক আইনি জামেলা বা সঠিক উপায় না জানার কারনে এটা করতে পারছে না।

আজকের লেখায় আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করবো চায়না হতে পন্য আমদানি করার সব থেকে সহজ ও নিরাপদ মাধ্যম সম্পর্কে।

ভিসা করে চীনে গিয়ে পন্য ক্রয় করতে আপনার প্রায় ১ লক্ষ টাকা খরচ পরে যাবে; আবার পন্যের আলাদা দাম তো আছেই। তাহলে চায়না হতে পন্য বা প্রোডাক্ট আমদানি করার সহজ সমাধান কি ?

আমদানি করার সহজ সমাধান কি

চীন হতে পন্য আমদানি করার সব থেকে উত্তম ও সহজ উপায় হচ্ছে আলিবাবা ডট কম। তবে আপনি যদি ব্যাক্তিগত প্রয়োজনে পন্য ক্রয় করেন তাহলে আলিএক্সপ্রেস হতে কিনতে পারেন।

আলিবাবা ডট কম হচ্ছে বিশ্বের সব থেকে বড় পাইকার পন্য ক্রয়-বিক্রয় করার অনলাইন শপ; এখানে আপনি হাজার হাজার সেলার এবং কয়েক হাজার আইটেমের পন্য পাইকারি কেনার সুযোগ পাবেন; বাংলাদেশ থেকেও আপনি পন্য বিক্রি করার সুযোগ পাবনে এখানে।

কিভাবে আলিবাবা তে একাউন্ট করবেন

আলিবাবা থেকে পন্য ক্রয়ের জন্য আপনার আলাদা একাউন্ট খোলার কোন বাধ্যবাধকতা নেই। তবে এখানে একাউন্ট খুললে আপনার কিছু সুবিধা আছে; আর তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে আপনি আপনার সেরালারে সাথে সহজেই যোগাযোগ করার সুযোগ পাবেন; এছাড়াও রিফান্ড নিয়ে কোন সমস্যা দেখা দিলে সহজ সমাধান এটি।

প্রথমেই আলিবাবা ডট কম এ চলে যান। এরপর সাইন আপ এ ক্লিক করে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে রেজিস্টারে ক্লিক করুন আপনার মেইল থেকে কনফার্ম করুন; একাউন্ট কররা জন্য আপনার নাম, মোবাইল নম্বর, ইমেইল, ঠিকানা এই সকল সাধারন তথ্য দিতে হয়।

আপনার পছন্দের পন্যটি খুজুন

একাউন্ট খোলা শেষ হলে আপনার পরবর্তী কাজ হচ্ছে পন্য খুঁজে বের করা।  সার্চ বারে আপনার প্রয়োজনীয় পণ্যটির নাম লিখে সার্চ করুন; হাজার হাজার পন্য দেখতে পাবেন। অর্থাৎ একই পন্য একাধিক সেলারের কাছে পাবেন।

কিভাবে সেলার নির্বাচন করবেন

অনলাইন শপিং করার জন্য আপনি যদি কিছু টিপস ফলো করেন তাহলে আপনি কখনও ঠকবেন না। ঠিক এখানেও আপনি কিছু বুদ্ধি খাটেবন আর সেটা হচ্ছে; সেলারের ওই পন্যের রেটিং অর্থাৎ আগের বায়ারদের রিভিউ কেমন। এমনকি তাদের কমেন্ট পড়ুন।

সেলার কতো দিন ধরে বিক্রি করছে। সেলার যত পুরনো ততো ভালো; তবে নতুনরা যে খারাপ তা বলছি না। নতুন হলেও নুন্যতম ১ বছরের পুরাতনদের নির্বাচন করুন। ৩ – ৫ বছর হলে সব থেকে উত্তম ।

তবে নতুন সেলারদের কাছে আপনি একটা ভালো পরিমান ডিস্কাউন্ট পাবেন। আবার উরাধুরা ডিস্কাউন্ট দেখে পন্য ক্রয় না করা উত্তম।

FOB না CFR সেটি চেক করুন

কি ভাই এগুলা আবার কি ? হ্যাঁ আমিও সহজে বলে দিচ্ছি। সহজ ভাষায়  FOB দ্বারা বুজায় যে আপনি যার নিকট হতে অর্থাৎ যে সেলারের নিকট হতে ক্রয় করছেন সে আপনার ক্রয় করা পন্য তার দেশের পোর্ট পর্যন্ত পৌঁছে দেবে। মানে ওই পর্যন্ত তার কাজ শেষ।

আর অপরদিকে CFR হচ্ছে সেলার আপনার ক্রয় করা প্রোডাক্ট আপনার দেশের পোর্ট পর্যন্ত পৌঁছে দেবে। এবং ট্রান্সপোর্ট ফি তারা বহন করবে।

কান্ট্রি রিজন চেক করুন

আপনার সেলার কোন দেশের তা দেখুন। অনেক সময় জাপানি, তাইওয়ান এর সেলারদের পন্যও আপনি পাবেন তাই আপনি যদি চায়নাদের থেকে নিতে চান তাহলে চেক করে নেন।

সেলারের সাথে যোগাযোগ

সেলারের প্রোফাইলের পাশে এসএমএস বা ইমেইল কররা অপশন আছে কিনা চেক করুন। পন্য কেনার আগে তার সাথে চ্যাট বা মেইল করে কালার সাইজ সব কিছু বিস্তারিত আলোচনে করে নিন ।

অনেক সময় অফার পন্যে নানা শর্ত দেওয়া থাকে; এতে করে অর্ডার দেওয়ার পর অনেক দুর্ভোগ পোহাতে হয়। মনের ভুলে আবার বাংলায় এসএমএস কইরেন না। অবশ্যই ইংরেজিতে করুন।

https://www.somagom.com/wp-content/uploads/2019/09/china.jpg

অতি উৎসাহী হওয়া থেকে বিরত থাকুন

আপনার টেক্সট বা মেইল সেলারের কাছে পৌঁছালে রিপ্লে পাবেন; আলিবাবা তে একাউন্ট থাকার সুফল এটি; আপনি সেলারের সাথে সেখানে সরাসরি চ্যাট করতে পারবেন।  সকল কিছু বিস্তারিত জেনে সিউর হোন।

শিপিং চার্জ

পন্যের মুল্য ২ ডলার কিন্তু শিপিং চার্জ ১০ ডলার হলে ওই পন্য আপনাকে মিনিমাম ১৪ ডলার সম মুল্যে বিক্রি করতে হবে। আর এতে করে আপনার ক্রেতা হারাবেন; তাই কম খরচে যে মাধ্যম পান সেটি সিলেক্ট করুন। তবে আপনি কতো দ্রুত চান তার উপর নির্ভর করবে।

সেলার বাংলাদেশে ডেলিভারি দেয় কিনা সেটিও দেখুন।শিপিং কস্ট খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তাই মাথায় রাখুন এবং ভেবে চিন্তে করুন।

ডেল, ফিডেক্স, টিএনটি এইসকল ডেলিভারি সার্ভিস খুবই জনপ্রিয়। তবে সেলারের ডেলিভারি মেথডে আপনার খরচ কম হবে।

পেমেন্ট করুন

যেহেতু পন্য ক্রয় করবেন সেহেতু মুল্য পরিশোধ করতে হবে। তবে এখানে কথা আছে; আপনাকে অবশ্যই ডুয়েল কারেন্সি সাপোর্ট করে এমন কার্ড দিয়ে পেমেন্ট করতে হবে। – যেমন- ভিসা, মাস্টার কার্ড ইত্যাদি।  ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমেও পেমেন্ট করতে পারবেন।

পেমেন্ট সম্পন্ন হলে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আপনার ঠিকানায় পন্য চলে আসবে।

এলসি করুন

পন্য কাস্টমস বা পোর্ট হতে ছাড়াতে হলে আপনাকে অবশ্যই এলসি দাখিল করতে হবে। তাই অর্ডার করার আগে এলসি করে নিন; বিদেশ হতে পন্য আমদানি করতে ব্যাংক মারফত এলসি করতে হয়। এলসি করার জন্য আপনার টিন সার্টিফিকেট প্রয়োজন হবে। এছাড়াও ট্রেড লাইসেন্স, পাসপোর্ট সাইজের ছবি, ট্রেজারি চালানের মূল কপি।

এলসি করার জন্য সব থেকে সহজ সমাধান আপনি ব্যাংকে পেয়ে যাবেন। এখানে আমি যতই বলি ন অ্যা কেন ব্যাংকে আপনাকে যেতেই হবে। তাই সেখান থেকে এলসি ফরম নিয়ে বিস্তারিত জেনে নিয়ম অনুসারে কাজ সম্পন্ন করুন।

পন্য পোর্টে পৌঁছালে খালাস করার পালা

নির্ধারিত সময়ে  পন্য আসলে আপনার এলসির কপি, ইনভয়েস এর কপি ( আপনি অর্ডার করলে আপনার মেইলে পৌঁছে যাবে অথবা আলিবাবা তে অর্ডার করার সময় পেয়ে যাবেন প্রিন্ট করে নিন; পন্য খালাসের জন্য আপনাকে নির্দিষ্ট কিছু চার্জ দিতে হবে।

আর কথা বাড়াচ্ছি না। সব শেষে আবারও স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি, প্রতিটি ধাপই খুবই মনোযোগ সহকারে করুন; আপনি আমদানি করার জন্য এলসির ঝামেলা না পোহাতে না চাইলে অনেক প্রতিষ্ঠান আছে যারা কিনা আপনার এই কাজে সাহায্য করে; তাদের সাহায্য নিতে পারেন। আপনি তাদের শুধু আপনার পন্যের বিবরন জানান। বাকি কাজ তারা করে দিবে; এতে আপনার পেমেন্টের ঝামেলাও পোহাতে হবে না। তবে কিছু চার্জ প্রদান করতে হবে; অনলাইনে সার্চ করলে এমন অনেক সাইট পেয়ে যাবেন । তবে অবশ্যই খোঁজ খবর নিয়ে নিন।

অনলাইনে শপিং কররা কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস 

বাংলা ভাষায় প্রোডাক্ট রিভিউ টেক আপডেট ও টেক টিপস পেতে নিয়মিত ভিজিট করুন আপনাদের প্রিয় সমাগম ডট কম।—-  ভালোবাসা অবিরাম।

লেখা নিয়ে আপনার কোন মতামত, পরামর্শ, অনুযোগ কিংবা অনুযোগ থাকলে আমাদের ফেসবুক পেজে বা কমেন্টে জানাতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *